Web
Analytics Made Easy - StatCounter

গরমে হালকা পোশাক

বছর ঘুরে আবারও এসেছে গ্রীষ্মকাল। শীতকালের ভারি কাপড় তো অনেক আগেই তুলে ফেলেছেন আলমারিতে। বসন্তের উষ্ণ হিম আবহাওয়াও এখন অতীত। তীব্র রোদের ঝলকানি উঁকি দেয় রাজপথে। গরম এসেছে, তাই বলে ঘরে বসে নেই জীবনযাত্রায় তাল মিলিয়ে চলা আধুনিক মানুষ। আবহাওয়ার সঙ্গে পাল্টেছে পোশাকের ধরনও। কিন্তু তারপরেও একটু কথা যেন থেকেই যায়! চিরাচরিত গরমের পাতলা পোশাকে নিজেকে বাঁধতে মন চায় না আধুনিকাদের। আর তাই তো খোঁজ পড়ে ভিন্ন কিছুর। সেটি হোক পোশাকে কিংবা অনুসঙ্গে। প্রতিবারের মতো এই গরমেও থাকছে নতুন কিছু পোশাক আর ভিন্ন কিছু ফ্যাশন।
প্রখর রোদ জানান দিচ্ছে গ্রীষ্ম চলে এসেছে। প্রকৃতি যখন সেজেছে এই রুদ্রসাজে, তখন আর কী করা। সূর্যের তাপ আর গরমকে ফাঁকি দিতে চাইলে এখনই বেছে নিন স্বস্তির পোশাক, সঙ্গে আপনার সাজেও যোগ করুন স্নিগ্ধতার ছোঁয়া। তবে যতই আপনি সাজতে ভালবাসেন, তবু গরমকালে তো গরমের কথাটা মাথায় রাখতেই হবে। তপ্ত গরমে ফুটছে রাজপথ থেকে গলি। এই গরমের সময় থেকে বাঁচতে চাই সঠিক পোশাক- যা হবে ট্রেন্ডি, ফ্যাশনেবল এবং আরামদায়ক।
গরমের জামাকাপড় বাছার আগে সবার আগে নজর রাখুন ফেব্রিকের উপর। রেশম, জিন্সের পরিবর্তে পরুন সুতির কাপড়। সুতির পোশাকই হোক গরমের পোশাকের প্রথম পছন্দ। দিন হোক বা রাত, গরম থেকে বাঁচতে সুতি কাপড়ের তৈরি পোশাক কিন্তু একদিকে যেমন ফ্যাশনেবল, তেমনই আরামদায়কও। টাইট পোশাকের পরিবর্তে পরুন ঢিলেঢালা পোশাক। রোদে বেরুনোর সময় ফুলহাতা বা থ্রি কোয়ার্টার হাতার পোশাক পরুন। পোশাকের রং হিসেবে গরমে বাছুন হালকা রং। সাদা এ ব্যাপারে একদম পারফেক্ট। দিনের বেলা উজ্জ্বল রং না বাছাই ভাল। গরমকালে জমকালো রং একটু এড়িয়ে চলাই উচিত। পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে মেয়েরা গরমের সময় ক্ষেত্রে সাদা, হালকা গোলাপি, হালকা বেগুনি, হালকা নীল, বাদামি, আকাশি, হালকা হলুদ, ধূসরসহ হালকা রঙের পোশাকগুলো প্রাধান্য দেওয়া উচিত।
গরমে সাদা ও অন্যান্য হালকা রঙের পোশাক শুধু তাপ শোষণই করে না, সেই সঙ্গে চোখকে দেয় প্রশান্তি। দিনের বেলা উজ্জ্বল রং না বাছাই ভাল। গরমে গাঢ় রং এড়িয়ে চলাই বাঞ্ছনীয়। পোশাকের রং যেন এমন হয় যা থেকে ত্বকের কোনও সমস্যা না হয়। আমরা বেশিরভাগ সময় পোশাকের বাইরের দিকটা দেখেই মোহে পড়ে যাই। কিন্তু পোশাকটি কী রং দিয়ে ডাই করা হয়েছে তা খেয়াল করি না। কোনও রাসায়নিক রং ব্যবহার করা হয়েছে কিনা, এই বিষয়গুলো নিয়ে এক্কেবারে মাথা ঘামাই না। তাই পোশাকের কোয়ালিটি, রং এ সব নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করাটা ভীষণভাবে জরুরি। খাদি কিংবা হ্যান্ডলুমের পোশাক এখন ফ্যাশন ইন। কিন্তু বাজার ছেয়ে গিয়েছে নকল রং আর নকল সুতোর পোশাকে। তাই বেশির ভাগ সময়ই দেখা যায় পোশাকটি দু-তিনবার ধুলেই রং উঠে যায়। আবার গরমের সময় দেখা যায় ঘামে শরীরে পোশাক আটকে যায়। পোশাক খোলার পর দেখা যায় শরীরেও পোশাকের রং লেগে রয়েছে। এই রং রোমকূপ দিয়ে শরীরে প্রবেশ করে হতে পারে মারাত্মক চর্মরোগ। তাই গরমের সময় এমন পোশাক বাছতে হবে যেন তা ন্যাচরাল কালারে ডাই করা থাকে। যেসব পোশাক বেশি উজ্জ্বল সেগুলোতে কিছুটা হলেও রাসায়নিক রং মেশানো থাকে। তাই সুতির পোশাক কেনার সময় একটু বুঝেশুনেই কিনুন।ন্যাচারাল কালারের পোশাক, যেগুলো রঞ্জক, রিঠার মতো ভেষজ উপাদানে রং করা হয়, তেমন পোশাকেই গরমের সময় ঝলমলে হয়ে উঠুন। আর গরমকে ভয় নয় উপভোগ করুন।

রিটজী গরমের পোশাকের ক্ষেত্রে এনেছে ভিন্নতা। শুধু তাই নয়, আপনি চাইলে ঘরে বসেও অর্ডার করতে পারেন এই পোশাক। রিটজীর ওয়েবসাইট অথবা ফেসবুক পেজ থেকে বেছে নিতে পারেন আপনার পছন্দের পোশাকটি। তাদের পোশাকের দরদাম শুরু ৩০০ থেকে ৩০০০ টাকার মধ্যে। তবে অনলাইনে কেনাকাটা করতে না চাইলে ঘুরে আসতে পারেন রিটজীর অফিস এবং ডিসপ্লে সেন্টার থেকে। রিটজীতে আছে পোলো ও টি শার্টের ক্যাজুয়াল লাইন। এসব পোশাকে স্লিম ফিট প্যাটার্ন ও ডিজাইনেও থাকছে সমকালীন ট্রেন্ড। আপডেট জানতে খোঁজ রাখুন রিটজীর ফেসবুক পেইজে । ঘরে বসেই পছন্দের পণ্যটি বাছাই করা যাবে সরাসরি ফেসবুক পেইজ বা রিটজী-এর অনলাইন স্টোর থেকে। আছে লাইফস্টাইল ব্লগ সুবিধাও। শপিং করতে থাকছে ক্যাশ অন ডেলিভারি, ক্রেডিট ও ডেবিট কার্ডসহ সবধরনের মোবাইল পেমেন্ট সুবিধা। অনলাইন স্টোর থেকে নির্ধারিত পণ্য ক্রয়ে দেশের যেকোনো প্রান্তে থাকছে পণ্য পৌঁছে দেবার সুবিধাও। ঘরে বসে কেনাকাটা করতে লগইন করুন এই ঠিকানায়

Share this post

Leave a Reply